“আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের উদ্যোগে গণহত্যা ও স্বাধীনতা দিবস পালিত।”



আয়ারল্যান্ডে গণহত্যা দিবস ও স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে কাউন্টি কর্কে “জুরিস ইন” হোটেলে আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পবিত্র কোরান তেলোয়াত ও গীতা পাঠের পর জাতীয় সংগীতের প্রতি সন্মান প্রদর্শন ও গণহত্যা সহ স্বাধীনতা যুদ্ধে সকল শহীদ দের জন্য এক মিনিট মিনিট নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়। গভীর শ্রদ্ধার সহিত স্মরণ করা হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব, জাতীয় চার নেতা ও ২ লক্ষ নির্যাতিত মা বোনদেরকে।


আয়ারল্যান্ড স্বেচ্ছাসেবকলীগ প্রধান তৌহিদ হাসান ও আয়ারল্যান্ড ছাত্রলীগের সভাপতি নোমান চৌধুরীর সাবলীল উপস্থাপনায় প্রাণবন্ত অনুষ্ঠানে প্রথম পর্যায়ে বক্তব্য রাখেন ডাবলিন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অলক সরকার।তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে পাকিস্থানীরা আমাদের নানাভাবে শোষণ করছিলো সেটা প্রশাসন থেকে শুরু করে সামরিক বাহিনী পর্যন্ত সব স্তরে।আমাদের নৈতিক আন্দোলন দমনের নামে গণহত্যা চালায় পাকিস্থানী হানাদার বাহিনী যার স্বীকৃতি আমাদের এখনো মেলেনি। তিনি আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগকে আরো কিছু দিকনির্দেশনা মূলক পদক্ষেপ গ্রহণের কথা বলে সেই লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ডাবলিন আওয়ামীলীগের সভাপতি ফিরোজ হোসেন ও আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রফিক খান বলেন, আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি জামায়াতের ষড়যন্ত্র রীতিমতো শুরু হয়ে গেছে। এরই অপপ্রয়াস হিসেবে আমরা দেখতে পাই কোথাকার কোন অখ্যাত চ্যারিটি সংগঠনের দ্বারা জরিপের ফলাফল ঢালাওভাবে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হতে। বক্তারা সকল কর্মীকে ধৈর্য্যের সাথে তা মোকাবেলা করার পরামর্শ দেন।

আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি জনাব কিবরিয়া হায়দার ও সাধারণ সম্পাদক জনাব বেলাল হোসেন যথাক্রমে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও প্রধান বক্তার বক্তব্যে বলেন, পাকিস্তানিরা ভেবেছিলো গণহত্যা চালিয়ে আমাদের সকল দাবী দাওয়া তারা বুটের তলায় দাবিয়ে রাখবে কিন্তু ওরা বুঝেনি আমাদের একজন শেখ মুজিব আছেন যিনি আমাদের হাজার বছরের পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করতে এসেছেন। বিএনপি জামায়েত জোট আন্দোলনের নামে ২০১৪ সালে পেট্রল বোমা দিয়ে, আগুনে পুড়িয়ে সেই একই কায়দায় বাঙালী নিধনে নেমেছিল। কিন্তু তারা বোঝেনি শেখ হাসিনা নামের আমাদের একজন জননেত্রী আছেন যিনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে কঠোর।অপরাধ করলে শাস্তি পেতেই হবে এটাই আমাদের নেত্রীর নীতি।

অনুষ্ঠানের শেষে সভাপতির বক্তব্যে কর্ক আওয়ামীলীগের সভাপতি জনাব ফয়জুল্লাহ শিকদার বলেন, আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে আজকে আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগ ঐক্যবদ্ধ, এবং আমাদের একটি সম্মেলন করতে হবে যেন বাংলাদেশের নির্বাচনে সম্মিলিতভাবে অবদান রাখা যায়। এসময় সভায় উপস্থিত বিভিন্ন জনের মতামতের ভিত্তিতে এই বছরের সেপ্টেম্বরের মধ্যে সম্মেলনের আয়োজনের কথা বলা হয়।

এছাড়া স্বাধীনতা দিবসকে সামনে রেখে অনুষ্ঠানে আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি কিবরিয়া হায়দার ও সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেন আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের ওয়েবসাইট www.irelandawamileague.com উদ্বোধন করেন। ওয়েবসাইট তৈরিতে সাহায্যকারী অলক সরকার বলেন, এখানে আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের সকল ধরণের খবর সন্নিবেশিত করা হবে।

অনুষ্ঠানে উক্ত বক্তারা ছাড়াও আরো বক্তব্য রাখেন আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি কামরুজ্জামান নান্না, রফিকুল ইসলাম। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আজিমুল হোসেন আজিম, বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ত্ব জামাল বাসির। আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইনজামামুল হক জুয়েল, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি মিজানুর রহমান, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ত্ব আলী ঝিনুক ও কর্ক আওয়ামীলীগের সবচেয়ে কনিষ্ঠ কর্মী রাদিন খান।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, কর্ক আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক টিপন বড়ুয়া ও সদস্য সুমন বড়ুয়া। ডাবলিন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সমীর কুমার, সিনিয়র সহ-সভাপতি জসিম পাটোয়ারী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক রুমন, সদস্য শফিকুল ইসলাম, আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিম অরণ্য, আওয়ামীলীগের কাউন্টি খিলডেয়ারের সভাপতি মিজানুর রহমান, কাউন্টি গলওয়ের সাধারণ সম্পাদক সামীর জসিম সহ অন্যান্যরা।

[ সংবাদটি পড়া হয়েছে : 2951 বার ]