“জননেত্রীর অসাধারণ নেতৃত্বে আওয়ামীলীগের নৌকা অবশেষে বিজয়ের বন্দরে ”



একাদশ জাতীয় নির্বাচনে অসাধারণ নৈপুণ্য দেখিয়েছেন বঙ্গবন্ধু তনয়া , বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের মানুষ আওয়ামীলীগের উপর, নৌকার উপর আস্থা রাখায় তাদেরকে ধন্যবাদ। এই বিজয় শুধু আওয়ামীলীগের নয়। এই বিজয় বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের যারা আগুন সন্ত্রাসী , বোমা সন্ত্রাসী , জঙ্গি ও ১০% খ্যাত দুর্নীতিবাজদের ধ্বজা উড়িয়ে দিয়েছে আওয়ামীলীগকে আরো একবার নির্বাচনে বিজয়ী করে।


অংশগ্রহন ও প্রতিদ্বন্দ্বীতা মূলক এই নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের এই ভূমিধস বিজয় অনেক ক্ষেত্রেই প্রত্যাশাকেও ছাড়িয়ে গেছে।অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, বাংলার মানুষ ভোটের জন্য মুখিয়ে ছিল দেশবিরোধী, অগ্নি সন্ত্রাসী বিএনপি জামায়াতের বিরুদ্ধে ম্যান্ডেট দেওয়ার জন্য আর দেবে নাই বা কেন কি করেছে বিএনপি জামায়েত জোট দেশের জন্য বা দেশের মানুষের জন্য। দেশ বিরোধী এই বিএনপি জামায়েত জোট সর্বদাই চেয়েছে বাংলাদেশকে পাকিস্তানের মতো একটি ব্যর্থ রাষ্ট্র তৈরী করতে তাই আমরা দেখি কখনো ষড়যন্ত্র করে, কখনো জঙ্গি দিয়ে হামলা করে বা কখনো পাকি গোয়েন্দা সংস্থআইএসআই দ্বারা তাদের ৩০০ আসনে মনোনয়ন দিয়ে দেশের ভাবমূর্তি জলাঞ্জলি দিতে।

এদের কাছে দেশ বা দেশের উন্নয়ন বা দেশের মানুষ মুখ্য নয় বরং ষড়যন্ত্র করে অথবা সন্ত্রাসী উপায়ে ক্ষমতায় যাওয়াটাই মুখ্য ছিল তাইতো আমরা দেখি জামায়াতের মতো যুদ্ধপরাধীদের একটি দলকে নিজ দলীয় প্রতীকে মনোনীত করতে। এই ধরণের কর্মকান্ড রীতিমতো বাঙালি জাতিকে নিয়ে উপহাস করা।নির্বাচনকে ঘিরে সহিংসতায় বিএনপি'র আক্রমণে আওয়ামীলীগের অনেক কর্মী নিহত হয়েছেন আমরা এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।


এই সাধারণ নির্বাচনের পর আমরা দেখলাম বিগত অন্যান্য নির্বাচনের মতোই বিরোধী দল নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছে। বাংলাদেশের নির্বাচনের এটাই চিরাচরিত নিয়ম বিরোধী দল নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করবে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে অনিয়মের অভিযোগ-ও উঠেছে যা অন্যান্যবারের সব নির্বাচনের মতোই। কিন্তু তাই বলে জনগণের রায়কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখানো সমীচীন নয়। বিএনপি বা ঐক্যফ্রন্ট ভেবেছিলো দল খেদানো নেতা মান্না ,রব এইসব নিয়ে ভোট বিপ্লব করতে পারবে কিন্তু আওয়ামীলীগের বিগত দশ বছরের শাসনামলে বাংলার জনগণ খেয়ে পড়ে ভালোই ছিল তারা যে এইসব মান্না-কামাল-রব দের মতো অখাদ্য-কুখাদ্য গ্রহণ করবে না তা বলাই বাহুল্য।



পরিশেষে, আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের একাদশ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সকল পর্যায়ের নির্বাচন প্রশাসনিক কর্মকর্তা , নির্বাচন কমিশন, আওয়ামীলীগ কর্মী ও সাধারণ জনগণকে ধন্যবাদ ও সাধুবাদ জানাই। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সকল নির্বাচিত এম.পি ও সভানেত্রী জননেত্রী শেখ-হাসিনা কে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন নৌকাকে সঠিকভাবে পরিচালনা করে বিজয়ের বন্দরে নোঙ্গর করার জন্য।




      
      
      


শুভেচ্ছান্তে,

কিবরিয়া হায়দার
সভাপতি
আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগ
বেলাল হোসেন
সাধারণ সম্পাদক
আয়ারল্যান্ড আওয়ামীলীগ


      

[ সংবাদটি পড়া হয়েছে : 3759 বার ]